আমরা কেউ ভালো নেই

কেউ কেউ চায় সকালটা সুন্দর কাটুক হয়তো দিনটা ভালো যাবে ? দুপুরের কেউ কেউ ঘুমুতে ভুলে যায় স্নানের পর ভুলে যায় ভেজা চুলের কথা রাত্রির মতো জেগে থাকা কারো কারো অতি আরাধ্যের ঘুমখানা যখন আসেনা ক্ষয়ে যায় দূর কোনো নদির তীর, পলিমাটি, সাজানো উপকূল হয়তো পুড়ে মরে কয়েকটা সিগারেট, নয়তো সাপের বিষে নিল হওয়া মুহূর্তগুলো […]

সবুজ ক্যাকটাস নীল যাতনা

ভালোবাসি উজ্জল ফণীমনসা অন্তহীন ক্যাকটাস হারাই চুম্বন গভীর যাতনা অথবা তোমার চোখের সবুজ । কোন গভীর জল কোন গভীর আর্তনাদ_ ক্যাকটাস তবুও সবুজ তবে, নীল কেন যাতনা _ ।

অনুকাব্য হেঁয়ালি তুমি আমার কল্পিত অশ্রু থরে থরে মেঘের উপর সাজানো আঁধার প্রিয়া ব্যস্ত সন্ধ্যার শেষে শেষ না হওয়া চুম্বন… কোন এক জনকে খুব সহজেই হারিয়ে যাই তোমার চোখের নীল নিবিড়তায় উদভ্রান্ত লাগে, বিবস কাটে রাত হারিয়েছি চাতক পাখি হারিয়েছি সব তোমার পেলব চুলের অবগাহনে… তুমি আমার এক নিশীথে ঘর ছেড়ে যাবার তীব্র অভিলাষ চুরি […]

ভালো থেকো প্রিয় শালুক লতা

সে বার (প্রথমবার )তোমার বাড়ির উঠোন থেকে ফিরে গিয়েছিলাম তোমার প্রেমে যে তখন ঠক ঠক করে কাঁপছিলাম । তুমি ছিলে তখন নিতান্তই একটা সেল ফোন নাম্বার, যার মিষ্টি কণ্ঠ আমাকে উদ্বেলিত করতো সকাল-বিকাল নিয়ত প্রহর কেটে যেতো এক ফু তেই । কথা ছিল, কখনো দেখা করবো না কথা ছিল, নাম জানবো না, ঠিকানা জানবো না অনেক না […]

নোলক ফুলের মতো চাঁদ তবুও

মাঝ রাতে একা বিছানায়, কি ভাবো ? আমার হাতে রাখা হাত? নাকি উজানে নৌকার ঢেউ নদীর শরীর বেয়ে নৌকোর গুন টানা সূর্য নিয়মহীন বাতাসের ঐতান অপার্থিব সন্ধ্যা, অগাস্তের বৃষ্টি ? আমার হাতে রাখা হাত, তোমার হিজল ত্বকে প্রস্তরযুগের কোন মোহচ্ছন্ন বিকেল । দূরে কোন নীল পাখি তার বিদেহি আত্মার সুরারোপ করছে নোলক ফুলের মতো চাঁদ তবুও […]

জানালায় বসে ভাবি মৃত্যুর মৌনতা

বিকেলের সূর্য, শেষ আলোক সাজে পতিত হয় নির্মোঘ নিয়তিতে শিয়রে মৃত্যু নিয়ে ঘূমের ব্ল্যাক এন্ড হোয়াট টিভিতে গাঁথি চারু স্বপন বিমোহিত হই তোমায় সুখ খুঁজি ছিপ ফেলে । এই যে নিয়ত ঘূর্ণায়মান পৃথিবী একদিন জমবে মৃত্যু বরফে ফীকে হবে সূর্য, আলোকময় বাগান এসো জানালায় বসে ভাবি মৃত্যুর মৌনতা ।

অসুখ

তোমার চোখের কলকাকলিতে সকালের ঘুমটা ভেঙ্গে গেলো আমি ইথোপিয়া হতে হেঁটে হেঁটে আদিস আবাবার হোটেল লাউঞ্জে ঝিমুচ্ছি হাতে কার্পেন্তারের ক্ষয়িত অসুখ শিরিষের ডালপালা, গজ গজ অবনিত অসুখ অক্সিডাইট চোখের পাপড়ি অচেনা মাশকারা পুড়ছে ঘুম থোকা থোকা ঘুম কলকাকলি বন্য, হিংস্র অবনিত সুখ… ।

সমুদ্র আমায় বিভ্রান্ত করে

সমুদ্র আমায় বিভ্রান্ত করে বিমূর্ত চোখ, অপাপবিদ্ধ মন নিয়ে বেরিয়েছিলাম সমুদ্র আমায় গ্রহন করেনি তার বিপুল জল রাশি আমায় গ্রহন করেনি আমি থমকে গিয়েছিলাম তার বিশালতার কাছে আমার যান্ত্রিক মনন গ্রহন করতে পারেনি তার বিশালতা । ভেবেছি হয়তো কারো দুঃখ এই জলে আঁকা আছে কোন সুদূর শহরের কারো বেল্কনিতে অশ্রুর মতো বৃষ্টির ফোঁটা হয়তো লবনাক্ত জল […]

শেষ হবে পাণ্ডুলিপির শেষ পাতাটিও

কখনো দেখেছো আগুনের ফুলকি, প্রিয় পাণ্ডুলিপি পুড়িয়ে ? আগুন পোহান শীতের রাতে । বাতাসে ভেসে যাবে পাণ্ডুলিপি ফুলকির মতো আশেপাশের গাঢ়ো অন্ধকার রাতকে অতিক্রম করে উপশম করবে শীত, হয়তো অব্যক্ত অনুবোধ, তেপান্তরের মাঠ পেরিয়ে এই ক্ষুদার পৃথিবীকে । নয়তো বাতাসের মাঝে ভেসে যাবে ফুলকির মতো কেউ কুড়িয়ে নেবে, নয়তো অব্যক্তই থেকে যাবে । এরপর রাত শেষ হবে, শেষ […]

তোমার বর্ধিষ্ণু টানা বারান্দা, আমার উচাটন মন

কি এক পায়রা এসেছিল তোমার মফস্বলের টানা বারান্দা পেরিয়ে_, আমি হয়তো তুমি হয়তো তুমি ভাবতেই উবে গেলো আসমানে । আমি বৃষ্টির মন্ত্র জপছিলাম মনে ছিল তোমার টানা বারান্দা অতিপ্রয়োজনীয় ভেনটিলেটার নিঃশ্বাস-আশ্বাস । আমি টেলিপ্যাথির মতো দেখছিলাম তোমার সবুজ উঠোন আদরের মানিপ্ল্যান্ট মেঘেদের লুকোচুরি, আর পাখিদের ঐকতান । এদিকে চৈতরাগুনে পুড়লো আমার বসতি, পুড়লো উচাটন মন যদিও মনে ছিল […]