দুস্বপ্ন

ঘুমাতে ছিলাম, হঠাৎ একটা স্বপ্ন ভেসে এল চোখ জুড়ে । দেখলাম একটা ক্ষতবিক্ষত ময়না পাখি উড়ে এসে বসল ঠিক আমার সামনে । ভালভাবে তাকিয়ে দেখলাম কেউ তাকে আঘাতের পর আঘাত করে ক্ষতবিক্ষত করেছে । তবুউ পাখিটা জীবন যুদ্ধে জয়ী হওয়ার জন্য চেষ্টা করছে । খুব কাছ থেকে সব দেখছিলাম । পাখিটা আমার দিকে এগিয়ে এল । হাত বাড়িয়ে দিলাম । পাখিটা হাতের উপর এসে বসল । সব কিছু খুব কাছ থেকে সব দেখছিলাম । দেখছিলাম পাখিটা তার আগের সব আঘাত কাটিয়ে উটে স্বাভাবিক জীবন কাটাচ্ছে । দেখতে দেখতে অনেকটা সময় পার হয়েগেল । হঠাৎ একদিন দেখলাম পাখির মনটা খুব খারাপ । বুঝতে চেষ্টা করলাম । বুঝলাম কিছু বাজপাখি তারা করছে, আমি কিছু করতে পারলাম না, শুধু দেখলাম । কিছু সময় পর বাজপাখিগুলো চলে গেল । মনেমনে ভাবলাম, যাক এখন পাখিটা নিরাপদ । পাখিটার এই সব কর্মকাণ্ড দেখে আমি বিমোহিত হলাম । মন থেকে পাখিটাকে কখন যে, ভালাবেসে ফেললাম নিজেও জানিনা । খুব যত্ন করে মনের মধ্যে একটা খাঁচা বানালাম, অনেক সময় এবং সপ্ন নিয়ে । যখন খাঁচা বানানো শেষ হলো, পাখিটাকে বললাম তোমার জন্য এই খাঁচা, এই খানে তুমি নির্ভয়ে থাকতে পার । কেউ কোনদিন আঘাত দিতে পারবেনা, জীবন দিয়ে আকরে রাখব । কিন্তু পাখিটা আমার কথা রাখলনা । আমাকে কাঁদিয়ে আকাশে উড়াল দিল । মনটা ভেঙ্গে পানি বিহীন মরুর বালুকনা হয়ে গেল ।
……… ঘুম ভেঙ্গে গেল, শুধু রয়েগেল মনভাঙ্গা যন্রনা ।
Drobo tara

দুস্বপ্ন” নিয়ে একটি মন্তব্য

  1. লেখার উপাদান বেশ ভালো এবং লেখাটি ভাবনারও খোরাক যোগায় বেশ । তবে, বানানের ব্যাপারে আরো বেশি সচেতন হওযা প্রয়োজন । অশুদ্ধ বানান পাঠের অন্তরায় । পুরা লেখাটাই একটি প্যারায় না করে, আরো কিছু প্যারায় বিন্যাস্ত করলে লেখাটির গঠনগত মান উন্নত হবে । প্রয়োজন বোধে লেখাটি আরেকটু বড় হতে পারে । লেখা সুবিন্যাস্ত হলে পড়তে আরাম হয়, আর না হলে পাঠক খেই হারিয়ে ফেলে ।

    লেখা চালিয়ে যান; আশা করি লেখার হাত আরো ভালো হবে ।

মন্তব্য করুন